বাংলার গেজেট প্রতিবেদক : বর্তমান সমাজে মারাত্মক এক ব্যাধির নাম ইভ টিজিং। এই ব্যধি প্রতিরোধে প্রতিবছর ১৩ জুন ইভ টিজিং প্রতিরোধ দিবস পালন করা হয়।
ইভ টিজিংয়ের শিকার মূলত নারীরাই। তাই নারীর সুরক্ষা নিশ্চিতে বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১৩ জুনকে ইভটিজিং প্রতিরোধ দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এরপর থেকে প্রতি বছর দিবসটি জাতীয়ভাবে পালিত হয়ে আসছে।
নারীদের প্রতিনিয়ত রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্রেও ইভ টিজিংয়ের শিকার হতে হয়। ইভ টিজিংয়ের শিকার হওয়া এসব নারীর অনেক মেয়ে ঘর থেকে বের হওয়া বন্ধ করে, মানসিক অবসাদে ভোগে। আবার কেউ কেউ বেছে নেয় আত্মহননের পথ।
বিশেষজ্ঞরা সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতা, রাজনৈতিকভাবে সন্ত্রাসীদের পৃষ্ঠপোষকতা, অশিক্ষা, কুশিক্ষা, পারিবারিক নেতিবাচক পরিবেশ, বেকারত্বের হার বৃদ্ধি, আইনের যথেচ্ছ ব্যবহার ও সুষ্ঠু প্রয়োগ না করার বিষয়টিকে ইভ টিজিংয়ের কারণ বলে চিহ্নিত করেছেন।
সমাজে ইভ টিজিং বন্ধ না হওয়ার মূল কারণ হিসেবে গবেষকরা মনে করেন, ইভ টিজাররা অপরাধ করেও বারবার পার পেয়ে যাওয়ার কারণে আবারও ইভ টিজিংয়ে জড়িয়ে পড়ে। এ জন্য আমাদের সামাজিক অব্যবস্থাও অনেকাংশে দায়ী।
এই ব্যাধিকে সমাজ থেকে প্রতিহত করতে সুশীল পারিবারিক শিক্ষার ওপরই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার প্রসারের পাশাপাশি নৈতিকতা বোধের চর্চাও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। এছাড়া আইনের কঠোর প্রয়োগ ও সর্বস্তরে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধিই এই ব্যাধি থেকে আমাদের মুক্তি দিতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ