বাংলার গেজেট আন্তজার্তিক ডেস্ক : বেঙ্গালুরুর একজন নাপিত রমেশ বাবুর কোটিপতি হওয়ার এক অবিশ্বাস্য কাহিনী এটি। চুল কেটেই কোটিপতি বনে গেলেন ভারতের এক নাপিত। বর্তমানে তিনি কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক। সেলুনে রোজ আসেন নিজের বিলাসবহুল রোলস রয়েস গাড়ি চালিয়ে। তবে একজন নাপিত থেকে কোটিপতি হয়ে ওঠা কতটা সহজ ছিল? সেই গল্পই জানিয়েছেন ভারতীয় এক গণমাধ্যমে।
রমেশের এই বিরাট পরিবর্তন এবং সাফল্যের পেছনে আছে কঠোর পরিশ্রম। টাকা রোজগারের জন্য বাড়ি বাড়ি খবরের কাগজ বিলি করতেন। তার বাবার স্মৃতি জুড়ে ছিল ছোট্ট একটি সেলুন। রমেশের কিশোর বয়সে তার মা সেলুনটি দিনে মাত্র পাঁচ রুপির বিনিময়ে ভাড়া দিয়ে ও মানুষের বাসায় কাজ করে সংসার চালাতেন।
১৯৯৪ সালের দিকে রমেশ সিদ্ধান্ত নিলেন বাবার রেখে যাওয়া সেলুনটি দিয়ে নিজেদের ভাগ্যবদল করবেন। রমেশের হাতে শিগগিরই সেটি তরুণদের পছন্দের হেয়ার স্টাইলিং সেলুন জোন হয়ে ওঠে।
কঠোর পরিশ্রমে ঘুরালেন ভাগ্যের চাকা। সেই জেরে তিন বছর পর নিজের কষ্টের উপার্জনে ‘মারুতি ওমনি’ গাড়ির মালিক হয়ে যান রমেশ। এরপর কেনা গাড়িটি ভাড়া দিতে শুরু করেন। এভাবেই শুরু হয় তার সাফল্যের গল্প।
সেলুনের ব্যবসা থেকে লাভের পুরো টাকাই বিনিয়োগ করেন গাড়ির ব্যবসায়। ৯০-এর দশক শেষে তিনি ট্যাক্সি ব্যবসায় সফল হন, তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম দেন ‘রমেশ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস’। রমেশ বাবু ভারতবর্ষের কোটিপতি একজন নাপিত।
তার কোটি টাকার সম্পত্তির পাশাপাশি আছে ৩৫০টি গাড়ি। আমদানি করা বিলাসবহুল গাড়ির মধ্যে রয়েছে রোলস রয়েস সিলভার গোস্ট, মার্সিডিজ সি, মার্সিডিজ ই, মার্সিডিজ এস, বিএমডব্লিউ ৫, বিএমডব্লিউ ৬, বিএমডব্লিউ ৭ সিরিজের গাড়ি।
বর্তমানে রমেশ বাবু কোটি টাকা আয় করলেও তিনি তার বাবার সেলুনের কাজকে সম্মান করেন। আর তাই রোজ দু-ঘণ্টা তিনি ১৫০ টাকায় সেলুনে চুল কাটেন।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ