বাংলার গেজেট আন্তজার্তিক ডেস্ক : দুলাভাইকে ৩১ টুকরা করেছিল দুর্বৃত্তরা, তার বদলা নিতে অভিযুক্তের ভাইকে পর পর ৩১টি গুলি করা হয়।
এমন ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের বুলন্দ শহরে। আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে এমনটি বলা হয়।
জানা যায়, গত ৮ মে বুলন্দশহরে খুন হয়েছিলেন শাদাব নামে এক চিকিৎসক। তার ক্লিনিকে ঢুকে তাকে গুলি করে দুর্বৃত্তরা। পরপর ৩১টি গুলি করে হত্যা করা হয় শাদাবকে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় শাদাবের। তবে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরেই এমন ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
এমন হত্যার রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামে স্থানীয় পুলিশ। সেই জট খুলতে নেমেই পুলিশের হাতে উঠে আসে পুরনো একটি খুনের মামলা। ঘটনাচক্রে সেই খুনের সঙ্গে জড়িত ছিল শাদাবের ভাই রাগিব দাসনা। বর্তমানে সেই খুনের অভিযোগে তিনি জেল খাটছেন।
এরপরই পুলিশ হাপুরের বাসিন্দা ইরফান নামে এক ব্যক্তির খুনের সঙ্গে শাদাবের খুনের একটি যোগসূত্র খুঁজে পায়। গত ১৮ মার্চে ইরফানকে নৃশংসভাবে খুন করা হয়। তাকে খুন করে দেহ ৩১ টুকরা করা হয়। সেই ঘটনায় তোলপাড় হয় হাপুরে।
ইরফানকে খুনের অভিযোগে শাদাবের ভাই রাগিব দাসনাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। কিন্তু ইরফানের খুনের বদলা নিতে গোপনে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তারই শ্যালক কাসিফ।
পুলিশ জানায়, জামাইয়ের হত্যার বদলা নিতে কয়েকজন প্রশিক্ষিত শ্যুটার ভাড়া করে কাসিফ। সেই শ্যুটাররাই শাদাবকে পরপর ৩১টি গুলি করে হত্যা করে। এই ঘটনা থেকেই পুলিশের ধারণা, ইরফানকে যেভাবে ৩১ টুকরা করা হয়েছিল, ঠিক একই কায়দায় সেই সংখ্যার গুলি ছুড়ে খুন করা হয় শাদাবকে।
ঘটনাচক্রে, রাগিবকে না পেয়ে শাদাবকেই খুন করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় অভিযুক্ত তিন শ্যুটারকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ। এছাড়াও কাসিফকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ