পটুয়াখালী প্রতিনিধি : পদ্মা সেতুর নাট বল্টু খুলে টিকটক করে গ্রেপ্তার হওয়া বাইজিদ তালহার পটুয়াখালীর গ্রামের বাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আজ সোমবার (২৭ জুন) বিকাল ৫টার দিকে পটুয়াখালীর লাউকাঠি ইউনিয়নের তেলিখালী গ্রামের মৃধা বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার সময় ঘরে থাকা বাইজিদের মেঝ ভাবী হাদিসা বেগম জানান, আট থেকে নয়টি মোটরসাইকেযোগে ২০ থেকে ২৫জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাড়ীতে উপস্থিত হয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় বড় বড় রামদা, দা, কুড়াল দিয়ে ঘরের সামনের ও পশ্চিম পাশের টিনের বেড়া কুপিয়ে ভাংচুর করে। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা ঘরে প্রবেশ করে মালামাল তছনছ করে। সন্ত্রাসীদের হাতে দেশীয় অস্ত্র দেখেই হাদিসা পাশের ঘরে গিয়ে আশ্রায় নেয়। হাদিসা জানান, তার স্বামী মোঃ সোহাগ মৃধা পটুয়াখালী শহরের ফায়ার সার্ভিস অফিসে কর্মরত থাকলেও ঘটনার সময় তিনি ঢাকায় অবস্থান করছে। ঘরে তিনি ও তার মেয়ে তিন বছর বয়সি ফাতিমাতুজ্জোহরা উপস্থিত ছিল।
পাশের ঘরের জাহেদা আক্তার জানান, টিন ভাংচুর ও কোপানোর শব্দ শুনে আমরা দৌড়ে এসে দেখি ২০ থেকে ২৫ বছর বয়সি অনেকগুলো পোলাপান ঘরের টিন ভাংচুর করে। তাদেরকে অপরিচিত লাগছে। তবে তাদের কথাকার্তায় পটুয়াখালীর আঞ্চলিকতা রয়েছে। জাহেদা জানান, হাদিসা ভাবীর স্বামী সোহাগের নতুন মোটরসাইকেলটিও ভাংচুর করেছে।
খালেক মৃধা জানান, হামলার সময় সন্ত্রাসীরা বলছে এরকম ভিডিও করা ঠিক হইছে? এই বলেই তারা ঘরের চারদিকের টিনের বেড়া কুপিয়েছে।
ওই ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত মেম্বার মিজানুর রহমান জানান, মোবাইল ফোনে তার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিষয়টি জানিয়েছেন। তারপর তিনি চৌকিদারকে ওই বাড়ীতে পাঠিয়েছে।
স্খানীয়দের সাথে আলাপ করে জানা গেছে যে, যারা এ হামলা ও ভাংচুর করেছে তারা সবাই অপরিচিত। তবে সোহাগের স্ত্রী হাদিসা বলেন, সন্ত্রাসীদের কয়েকজনকে দেখলে তিনি চিনতে পারবেন।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত সদর থানার এসআই ছলিমুর রহমান জানান, ওসি সাহেবের নির্দেশে ঘটনাস্থলে এসে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছি। ঘরের টিন কুপিয়েছে, কিছু মালামাল ভাংচুর করেছে। সকলের সাথে কথা বলছি। বিস্তারিত পরে জানাতে পারব।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ