পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের নেছারাবাদে প্রতিবেশীর লাঠির আঘাতে এক যুবক নিহত হয়েছেন। আজ শনিবার (০৯ জুলাই) সকালে উপজেলার উত্তর গগন গ্রামে এ হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে।
নিহত হাসান (২৮) উপজেলার উত্তর গগন গ্রামের মহিউদ্দিনের ছেলে। অভিযুক্ত প্রতিবেশী সরোয়ার (৪০) একই গ্রামের আব্দুল হাসেমের ছেলে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হাসানের স্ত্রী ফাতেমা এবং সরোয়ারের ভাই সাইদুলের স্ত্রীর সঙ্গে পারিবারিক বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্ব ছিল। এই দ্বন্দ্বের জেরে বেশ কিছু দিন আগে সোহেলের স্ত্রী ফাতেমা এবং সাইদুলের স্ত্রীর ঝগড়া ও মারামারির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় হাসান বাদী হয়ে পিরোজপুরের আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।
এ নিয়ে আদালত থেকে সাইদুলের বাড়িতে একটি নোটিশ যায়। এ ঘটনায় সরোয়ার হাসানের ওপর ক্ষিপ্ত হয়। এরপর শনিবার সকাল ৭টার দিকে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় সামনে থেকে হাসানের মাথায় লাঠি দিয়ে সজোরে আঘাত করে সরোয়ার। এতে হাসান ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়লে পরিবারের সদস্যরা তাৎক্ষণিকভাবে তাকে নেছারাবাদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক হাসানকে মৃত ঘোষণা করেন। তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন সরোয়ার।
নেছারাবাদ থানার পুলিশ পরিদর্শক মো. সোলায়মান জানান, পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে পিরোজপুর জেলা হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। তবে এ ঘটনায় পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ