বাংলার গেজেট প্রতিবেদক : বাজারে বেড়েছে পেঁয়াজের ঝাঁজ। পাইকারি-খুচরা সব বাজারেই বাড়তি দাম। মসুর ডালের দরও বেড়েছে। ছুটির দিনের বাজারে সয়াবিন তেলের সংকট না থাকলেও বিক্রি হচ্ছে নতুন দামে। সবজির বাজারও বেশ চড়া।
গত কয়েকদিন ধরেই বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। ছুটির দিনের বাজারে বেড়েছে আরো এক দফা। কেজিতে বেড়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা। প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকায়। দাম বাড়ার ক্ষুব্ধ ক্রেতারা।
একজন ক্রেতা বলেন, “দুই পাল্লা নিলাম ২১০ টাকা করে। আগে ১৪০ থেকে ১৫০ করে ছিল।”
আরেকজন ক্রেতা বলেন, “আমরা তো অসহায় বিক্রেতাদের কাছে, তাও এই বাজারে কিছুটা কম, মহল্লার বাজারে দাম আরও বেশি।”
বাজারে সয়াবিন তেলের কোন ঘাটতি নেই। তবে ঈদের পর যে দাম বেধে দেয়া হয়েছিলো সে দামেই বিক্রি হচ্ছে তেল। 
“পাঁচ লিটান ৯৮০, দুই লিটার ৩৯৬, এক লিটার ১৯৮ এই দামেই বিক্রি হচ্ছে সয়াবিন তেল” বলেন বিক্রেতা।
বেড়েছে দেশি ও আমদানি করা মসুরের ডালের দাম। কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা করে। দেশি মসুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। বাকি নিত্য পণ্য আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে। 
সবজি বাজারেও ক্রেতার অস্বস্তি। প্রতি কেজি বেগুন ৭০, টমেটো ৬০, করলা ৭০, কাাঁচা পেঁপে ৭০ আর কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। দাম বাড়ার জন্য খারাপ আবহাওয়া এবং সরবরাহ ঘাটতিকেই দুষছেন বিক্রেতারা। 
মুরগীর ডিমের দাম এক লাফে বেড়ে যাওয়ার পর ডজনে ৫ টাকা কমার স্বস্তি দিচ্ছে ক্রেতাদের। 
এদিকে নতুন চালের দাম কমলেও আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে সব রকমের চাল। বাড়েনি মাছ-মাংসের দাম। 
বাংলার গেজেট  /এম এইচ