যশোর প্রতিনিধি : যশোর শহরের বেজপাড়া টিবি ক্লিনিক এলাকার নুর নবী সোহেল ওরফে ট্যাবলেট সোহেলকে অপহারণ ও গুমের অভিযোগে এক বছর পর স্ত্রীসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে অপরিচিত ১২/১৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার নুর নবী সোহেলের মা আয়শা বেগম বাদী হয়ে এ মামলা করেছেন। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম অভিযোগটি গ্রহণ করে অপহৃত সোহেলকে উদ্ধার পূর্বক পিবিআইকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।
আসামিরা হলো অপহৃত নুর নবী হোসেলের স্ত্রী অভয়নগরের মাগুরা গ্রামের হাচান মোল্যার মেয়ে রোমেচা বেগম, মৃত ইসমাইল মোল্যার ছেলে ইরশাদ মোল্যা, আনছার মোল্যার ছেলে আকরাম মোল্যা ও মৃত আব্দুস সাত্তার মোল্যার ছেলে হাফেজ মোল্যা।
মামলার অভিযোগে জানা গেছে, আসামি রোমেচা বেগম অপহৃত নুর নবী সোহেলের স্ত্রী। এলাকায় প্রচার আছে রোমেচার সাথে ইরশাদ মোল্যার প্রেমের সম্পর্ক আছে। ২০২০ সালের ৭ জুন নুর নবী মোহেল তার স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুর বাড়ি বেড়াতে যান। রোমেচা তার পিতার বাড়ি যেয়ে স্বামীর সাথে ঝগড়া বাধায়। গভীর রাতে রোমেচা বাড়ি ফোন করে জানায়, সাদা পোশাকের একদল লোক সোহেলকে তুলে নিয়ে গেছে। রোমেচার কথা বিশ্বাস করে এক বছর ধরে খোঁজাখুজি করে সোহেলকে উদ্ধারে ব্যর্থ হয়। ইদানিং রোমেচার সাথে এরশাদ মোল্যার প্রেমের বিষয়টি প্রকাশ্য হয়ে গেছে। সোহেল তার স্ত্রীর পরকিয়ার বিষয়টি জেনে ফেলায় আসামিরা পরিকল্পিত ভাবে অপহরণ করে গুম করেছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা করতে ব্যর্থ হয়ে তিনি আদালতে মামলা করেছেন।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ