বাংলার গেজেট প্রতিবেদক : দ্বিতীয় দিনের সকালে লঙ্কান পেসারদের তোপে দল যখন আবার বিপদে পড়ল আগের দিনের সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাসও যখন সাজঘরে ফিরে গেছেন, তখনও মুশফিক একপ্রান্ত আগলে লড়াই চালিয়ে গেছেন। তার বীরত্বেই বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত প্রথম ইনিংসে ৩৬৫ রান সংগ্রহ করতে পেরেছে। ১১৫ রান নিয়ে দিন শুরু করা মুশফিক ইনিংস শেষে ১৭৫ রানে অপরাজিত থেকেছেন।
এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৪ রান। উইকেটে আছেন দিমুথ করুণারতেœ ১ রানে ও ওসাদা ফার্নান্দো ১০ রানে।
আজ মঙ্গলবার (২৪ মে) মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে ৫ উইকেটে ২৭৭ রান নিয়ে ব্যাট করতে নামেন মুশফিক ও লিটন। এদিন আরও ১৯ রান যোগ করেন দুজন। রাজিথার চতুর্থ শিকার হয়ে লিটন ফিরলে ভাঙ্গে তাদের ২৭২ রানের ম্যারাথন জুটি। লিটন থামেন ১৪১ রানে। ২৪৬ বলের ইনিংসে তিনি মারেন ১৬ চার ও ১ ছক্কা। বিদায়ের আগে মাহমুদউল্লাহর রেকর্ড নিজের করে নেন তিনি। টেস্টে সাত নম্বরে নেমে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস এখন তার।
টেস্টে বাংলাদেশের পক্ষে এটি যে কোনও উইকেটে তৃতীয় সর্বোচ্চ রানের জুটি, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বোচ্চ। ৩৫৯ রানের জুটি নিয়ে তালিকার সবার উপরে থাকা জুটিতেও রয়েছে মুশফিকের নাম। ২০১৭ সালে ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওই জুটিতে তার সঙ্গী ছিলেন সাকিব আল হাসান।
লিটনের বিদায়ের পর প্রায় আড়াই বছর পরে টেস্ট দলে ফেরা স্বরণীয় করে রাখতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। খেলেছেন মাত্র ৩ বল। একই ওভারে তাকে শূণ্য রানে ফিরিয়ে ৫ উইকেটের ল্যান্ডমার্ক স্পর্শ করেন রাজিথা। তবে যোগ্য সঙ্গীর অভাবে ১৭৪ রানে অপরাজিত থাকেন মুশফিকুর রহিম। খালেদ আহমেদ ও এবাদত হোসেনও ফিরেছন শূণ্য রানে। ইনিংসে বাংলাদেশের ছয় ব্যাটার শূণ্য রানে আউট হয়েছেন। দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট ড্র করেছিলো দু’দল।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ