মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : বাগেরহাটের রামপালে আওয়ামী লীগের পরাজিত মেম্বর প্রার্থীর নির্বাচনী অফিস ও তার সমর্থকদের বাড়ীতে হামলা, মারপিট ও ভাংচুর চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে বিএনপি সমর্থিত বিজয়ী মেম্বর প্রার্থীর বিরুদ্ধে।
গতকাল সোমবার রাতে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা একজনকে কুপিয়ে আহত করার পাশাপাশি নির্বাচনী অফিসের চেয়ারসহ আসবাবপত্র ভাংচুর ও অফিসে টানানো বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের ছবি তছনছ করে মাটিতে ফেলে তার উপর উল্লাস করেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের পরাজিত প্রার্থী শেখ আবুল কালাম।
আওয়ামী লীগের পরাজিত মেম্বর প্রার্থী শেখ আবুল কালাম জানান, রামপাল উপজেলার পেড়িখালী ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি তিনি। এবার ইউপি নির্বাচনে তিনি তার ওয়ার্ডে দলের সমর্থনে মেম্বর প্রার্থী হন। তবে গতকাল সোমবারের ভোটে তিনি হেরে যান। নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণার পর তিনি তার লোকজনকে নিয়ে বাড়ী চলে যান। আমি হেরে যাওয়ার পর ২ নম্বর ওয়ার্ডের সিকিরডাঙ্গা ও পশ্চিম পাড়ার দুইটি নির্বাচনী অফিস এবং আমার দুই সমর্থকের বাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়েছে আমার প্রতিপক্ষ বিএনপি সমর্থিত বিজয়ী মেম্বর সালামসহ তার লোকজন। এখনও হুমকি-ধামকি ও ভয়ভীতি দেখাচ্ছে, তাই অনেক লোকজ এখনও আমার বাড়ীতে অবস্থান করছে। তারা ভয়ে আমার বাড়ী থেকে বের হয়ে তাদের নিজ বাড়ীতে যাওয়ার সাহস পাচ্ছেনা। বিষয়টি আমাদের চেয়ারম্যান হাওলাদার রফিকুল বাবুলকে (পেড়িখালী ইউপি চেয়ারম্যান) জানিয়েছি। তারপর থানায় অভিযোগও দিয়েছি।
অভিযুক্ত শেখ আব্দুল সালাম এ সকল ঘটনার বিষয় অস্বীকার করে বলেন, এসব মিথ্যা। প্রতিপক্ষ মেম্বর প্রার্থী কালাম হেরে গিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছেন।
পেড়িখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাওলাদার রফিকুল ইসলাম বাবুল বলেন, বিষয়টি নিয়ে আজ মঙ্গলবার পরিষদে বসা হবে বলে উভয় পক্ষকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।
রামপাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সামসুউদ্দিন বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
বাংলার গেজেট/ এম এইচ